• Youtube
  • google+
  • twitter
  • facebook

অস্বাভাবিক জোয়ারে ডুবেছে বরিশাল নগরীর অধিকাংশ এলাকা

বরিশাল প্রতিনিধি ১০:০৩ অপরাহ্ণ, আগস্ট ৫, ২০২০

বরিশাল নগরীর পাশ দিয়ে বয়ে যাওয়া কীর্তনখোলা নদীর পানি সাগরে লঘুচাপ এবং পূর্নিমার প্রভাবে বুধবার বিকেলে বিপদসীমার ২০ সেন্টিমিটার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হয়েছে। এতে নদীর পানি উপচে নগরীর অধিকাংশ এলাকা জলমগ্ন হয়ে পড়ে। 

কীর্তণখোলাসহ দক্ষিণাঞ্চলের নদ-নদীর পানি বুধবার বিকেলে বিপদসীমা অতিক্রম করে। মেঘনা তীরবর্তী উপজেলা মেহেন্দিগঞ্জ, হিজলা, মুলাদী উপজেলার দুই-তৃতীয়াংশ জনপদ পানির নিচে তলিয়ে যায়। এর ফলে পানিবন্দী হয়ে পড়ে ওই তিন উপজেলার চরাঞ্চলের হাজার হাজার পরিবার। ভেসে গেছে ওইসব এলাকার মাছের ঘের। 

বরিশাল নগরীর প্রাণকেন্দ্র সদর রোডে বিকেল ৩টার দিকে জোয়ারের পানি প্রবেশ করতে শুরু করে। নদীর সঙ্গে সংযোগ থাকা ড্রেন দিয়ে পানি ঢুকে ডুবে যায় নগরীর প্রধান সড়ক সদর রোডের একাংশ। সন্ধ্যা ৬টার মধ্যে অশ্বিনী কুমার হল এলাকা ও তার আশপাশের সড়ক পানির নিচে তলিয়ে যায়। পানি প্রবেশ করে অনেক বসতবাড়িতেও। 

নগরীর নিচু এলাকা হিসেবে পরিচিত কীর্তনখোলার তীরের জনপদ সাগরদী ধান গবেষণা সড়ক, পূর্ব রূপাতলী, জাগুয়া, আমানতগঞ্জ, পলাশপুরসহ আরও অনেক এলাকা হাঁটু পরিমাণ পানি নিচে তলিয়ে যায়। সবচেয়ে সংকটে পড়ে কীর্তনখোলা তীরসংলগ্ন রসুলপুর, কলাপট্রি, পলাশপুর, বরফকল ও স্টেডিয়াম বস্তির বাসিন্দারা। 

পাউবোর উপ-সহকারী প্রকৌশলী মো. মাসুম জানান, পূর্ণিমার প্রভাবে অস্বাভাবিক জোয়ার হওয়ায় দক্ষিণাঞ্চলের নদ-নদীর পানি বিদপসীমা অতিক্রম করেছে। বুধবার বিকেল ৬টায় কীর্তনখোলার পানি বিপদসীমার ২০ সেন্টিমিটার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হয়। তখনও পানি বৃদ্ধি পাচ্ছিল। সন্ধ্যা ৭টার দিকে ভাটা শুরু হয়েছে। এখন পানি কমতে শুরু করবে। 

লাইভ

rss goolge-plus twitter facebook
Design & Developed By:

প্রকাশক : গোলাম মাওলা শান্ত
মোবাইলঃ ০১৭১৪৭৮৫০১৭, ০১৭১১৫৭৪৪১৫
অফিসঃ ৩৮৩/২/এ, বনশ্রী রোড, পশ্চিম রামপুরা, রামপুরা, ঢাকা-১২১৭

ই-মেইল: jugerbarta.news@gmail.com,

সম্পাদক:  এ্যাড. কাওসার হোসাইন
নির্বাহী সম্পাদক: খান মাইনউদ্দিন
ব্যবস্থাপনা সম্পাদক: তানজিল হাসান খান
বার্তা সম্পাদক: এইচ.এম বশির

টপ